শরৎ বক্তৃতামালা » শরৎ বক্তৃতামালা

রচনাবলী
পাতা তৈরিফেব্রুয়ারি ২৪, ২০১৬; ০০:০০
সম্পাদনাঅক্টোবর ২০, ২০২০, ১৫:৩৬
দৃষ্টিপাত
বিষয়াবলী ,
শরৎ বক্তৃতামালা‘ নামে শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের কোন গ্রন্থ প্রকাশিত হয়নি, তবে ‘এম. সি. সরকার অ্যাণ্ড সন্‌স’ থেকে প্রকাশিত ‘শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ’-এর বিভিন্ন সম্ভারে ‘বিভিন্ন রচনাবলী’ নামে কিছু প্রকাশিত ও অপ্রকাশিত রচনা সন্নিবেশিত হয়েছিল। সেগুলোর মধ্যে বাছাই করে কয়েকটি রচনাকে আমরা ‘শরৎ বক্তৃতামালা‘ নামে এডুলিচার পাঠশালা সাইটে সন্নিবেশন করেছি। কাজটি কতটুকু যথার্থ হয়েছে তার মূল্যায়ন করবেন পাঠকেরা। কিন্তু, নূতন নামে পুস্তক কেন? পাঠকের দিক বিবেচনা করলে অথবা বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান হতে প্রকাশিত শরৎ রচনাবলী লক্ষ্য করলে এসকল রচনাকে অপ্রকাশিত রচনা হিসেবে বিবেচনা করা যায়। আমরা তা করিনি, কেননা, শরৎচন্দ্রের গ্রন্থাকারে অপ্রকাশিত রচনাও কম নয়। এছাড়া পরিত্যক্ত রচনাও যথেষ্ট পরিমাণে রয়েছে। তাই, আমরা বিশেষ কিছু রচনাকে ‘শরৎ বক্তৃতামালা‘ নামে সাজানো সঙ্গত মনে করেছি। ‘শরৎ বক্তৃতামালা‘ নামটি কেন? এর পেছনে প্রধান কারণ হলো, এই শিরোনামের অধীনে সঙ্কলিত রচনাসমূহে মূলতঃ প্রতিভাষণ,—অভিভাষণ। এইগুলোতে একই বক্তব্যের পুনরাবৃত্তি হয়েছে বারবার, কেননা, বিভিন্ন স্থানে, বিভিন্ন পরিপ্রেক্ষিতে একই কথা বারবার বলতে হয়েছে। এইসকল রচনা অনুলিখন, তাই শরৎচন্দ্রের রচনার স্বাদ এগুলোতে পুরোপুরি পাওয়া যাবে এমন আশা করা ঠিক হবে না। সাহিত্যমান যাই হোক, কিছু বিষয় আছে উৎসাহী পাঠককে আকৃষ্ট করবে। আমরা এমনই বিবেচনাবোধ থেকে এই অধ্যায়কে সাজিয়েছি।
গ্রন্থাবলী
মতামত জানান