কমললতা » কমললতা

রচনাবলী
পাতা তৈরিফেব্রুয়ারি ১৮, ২০১৫; ০১:০৭
সম্পাদনাজানুয়ারি ৩১, ২০২১, ১৪:০৭
দৃষ্টিপাত
কমললতা শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের মৌলিক গ্রন্থ নয়। এটি লেখকের বিখ্যাত শ্রীকান্ত উপন্যাসের চতুর্থ পর্বের শেষ দশ পরিচ্ছেদ অর্থাৎ ছয় থেকে চৌদ্দ পরিচ্ছেদ নিয়ে প্রকাশিত হয়েছিল। প্রকাশক শ্যামাপদ সরকার, কামিনী প্রকাশালয়, ১১৫, অখিল মিস্ত্রি লেন, কলিকাতা-৭০০০০৯। প্রথম প্রকাশ— জ্যৈষ্ঠ, ১৩৬৯; প্রচ্ছদ—পার্থপ্রতিম বিশ্বাস। মুদ্রক—শ্রীমথুর মোহন গাঁতাইত, কামিনী প্রিণ্টার্স, ১২, যতীন্দ্র মোহন এভিনিউ, কলিকাতা—৭০০০০৬। ...

কমললতা শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের মৌলিক গ্রন্থ নয়। এটি লেখকের বিখ্যাত শ্রীকান্ত উপন্যাসের চতুর্থ পর্বের শেষ দশ পরিচ্ছেদ অর্থাৎ ছয় থেকে চৌদ্দ পরিচ্ছেদ নিয়ে প্রকাশিত হয়েছিল। প্রকাশক শ্যামাপদ সরকার, কামিনী প্রকাশালয়, ১১৫, অখিল মিস্ত্রি লেন, কলিকাতা-৭০০০০৯। প্রথম প্রকাশ— জ্যৈষ্ঠ, ১৩৬৯; প্রচ্ছদ—পার্থপ্রতিম বিশ্বাস। মুদ্রক—শ্রীমথুর মোহন গাঁতাইত, কামিনী প্রিণ্টার্স, ১২, যতীন্দ্র মোহন এভিনিউ, কলিকাতা—৭০০০০৬।

কামিনী প্রকাশালয়ের বিরুদ্ধে অন্য নবীন লেখকদের লেখা শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের নামে প্রচারের অভিযোগ আছে। অনুরূপ একটি গল্পগ্রন্থের নাম সিমার, লেখকের নাম ও সিগনেচার হুবহু শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের মতো হলেও গ্রন্থের ভাষা, গল্পের প্রেক্ষাপট নির্বাচন ইত্যাদি দিক বিবেচনা করলে মনে হয়, সিমারের লেখক ভিন্ন কোন শরৎচন্দ্র অথবা শরৎচন্দ্রের গগনচুম্বী খ্যাতি বিকিয়ে ভিন্ন কারো লেখা শরৎচন্দ্রের বলে চালিয়ে দেবার প্রয়াস মাত্র।

গ্রন্থাবলী
মতামত জানান