ফেলুদা সমগ্র » ফেলুদা সিরিজ নির্ঘণ্ট

পাতা তৈরিডিসেম্বর ৩, ২০২০; ০০:৪১
সম্পাদনাডিসেম্বর ১৩, ২০২০, ১৯:৫৬
দৃষ্টিপাত
সব বয়সী, সব পাঠকের প্রিয় গোয়েন্দা ফেলুদার রহস্য রোমাঞ্চ অ্যাডভেঞ্চার। গোয়েন্দা গল্প বাংলায় কম লেখা হয়নি, কিন্তু এমন টানটান, মেদবিহীন গল্প বিরল। ফেলুদার রহস্য কাহিনীর কোনওটাতেই আড়ষ্টতা নেই। নেই কোনও বাহুল্য। একটা বাড়তি শব্দও খুঁজে পাওয়া ভার। গল্পজুড়ে ছবির পর ছবি ফুটে ওঠে। এই পাতায় ফেলুদা সিরিজের রচনা সমূহের প্রথম প্রকাশ ও গ্রন্থভূক্তি বিষয়ক তথ্যাদি পরিবেশিত হল ...

ফেলুদা সমগ্র

সব বয়সী, সব পাঠকের প্রিয় গোয়েন্দা ফেলুদার রহস্য রোমাঞ্চ অ্যাডভেঞ্চার। ফেলুদার একটা পোশাকি নাম আছে—প্রদোষ মিত্র। কিন্তু ফেলু মিত্তির নামেই তাঁর সমস্ত খ্যাতি। রহস্যের জট খুলতে ফেলুদার জুড়ি নেই। ফেলুদা, তোপ্‌সে আর লালমোহনবাবুকে নিয়ে লেখা সত্যজিৎ রায়ের প্রতিটি অ্যাডভেঞ্চার-অভিযান অবশ্যই পড়তে হবে। এই পড়ার কাজটি যাতে আরও সহজসাধ্য হয় তার জন্য পাঠকদের হাতে এবার ফেলুদা সমগ্র।

ফেলুদার গোয়েন্দাগিরি

ফেলুদার গোয়েন্দাগিরি প্রথম প্রকাশ সন্দেশ, অগ্রহায়ণ-পৌষ-মাস ১৩৭২। ‘একডজন গপ্‌পো’ গ্রন্থের অন্তর্ভূক্ত হয়ে গ্রন্থাকারে প্রকাশ ২৫ বৈশাখ ১৩৭৭-এ আনন্দ পাবলিশার্স প্রাইভেট লিমিটেড থেকে। অলঙ্করণ সত্যজিৎ রায়। ‘পাহাড়ে ফেলুদা গ্রন্থে সঙ্কলিত হয় জানুয়ারি ১৯৬৬ সালে, প্রকাশক আনন্দ পাবলিশার্স প্রাইভেট লিমিটেড।

বাদশাহী আংটি

বাদশাহী আংটি প্রথম প্রকাশিত হয় সন্দেশ, চৈত্র ১৩৭৩ ও বৈশাখ ১৩৭৪ সংখ্যায়। আনন্দ পাবলিশার্স থেকে গ্রন্থাকারে প্রথম প্রকাশিত হয় আশ্বিন ১৩৭৬ সালে। প্রচ্ছদ ও অলঙ্করণ সত্যজিৎ রায়। আনন্দ পাবলিশার্স প্রাইভেট লিমিটেড থেকে ‘ফেলুদার সপ্তকাণ্ড’ গ্রন্থভূক্ত হয়ে প্রকাশিত হয় নভেম্বর ১৯৯৮ সালে।

কৈলাস চৌধুরীর পাথর

কৈলাশ চৌধুরীর পাথর প্রথম প্রকাশিত হয় সন্দেশ, শারদীয়া ১৩৭৪ সংখ্যায়; গ্রন্থভূক্তি ২৫ বৈশাখ ১৩৭৭ সালে আনন্দ পাবলিশার্স থেকে প্রকাশিত ‘একডজন গপ্‌পো-এ। প্রচ্ছদ ও অলঙ্করণ সত্যজিৎ রায়। ‘কলকাতায় ফেলুদা’ গ্রন্থভূক্ত হয় জানুয়ারি ১৯৮৮ সালে। প্রকাশক আনন্দ পাবলিশার্স প্রাইভেট লিমিটেড।

শেয়াল-দেবতা রহস্য

শেয়াল-দেবতা রহস্য প্রথম প্রকাশিত হয় সন্দেশ, গ্রীষ্ম ১৩৭৭ সংখ্যায়; গ্রন্থভূক্তি এপ্রিল ১৯৭৭ সালে আনন্দ পাবলিশার্স থেকে প্রকাশিত ‘আরো এক ডজন’-এ। প্রচ্ছদ ও অলঙ্করণ সত্যজিৎ রায়। ‘কলকাতায় ফেলুদা’ গ্রন্থভূক্ত হয় জানুয়ারি ১৯৮৮ সালে। প্রকাশক আনন্দ পাবলিশার্স প্রাইভেট লিমিটেড।

গ্যাংটকে গণ্ডগোল

গ্যাংটকে গণ্ডগোল প্রথম প্রকাশিত হয় সন্দেশ, শারদীয়া ১৩৭৭ সংখ্যায়; গ্রন্থভূক্তি ফেব্রুয়ারি ১৯৭১ সালে। প্রকাশক আনন্দ পাবলিশার্স প্রাইভেট লিমিটেড। প্রচ্ছদ ও অলঙ্করণ সত্যজিৎ রায়। ‘পাহাড়ে ফেলুদা’ গ্রন্থভূক্ত হয় জানুয়ারি ১৯৯৬ সালে। প্রকাশক আনন্দ পাবলিশার্স প্রাইভেট লিমিটেড।

সোনার কেল্লা

সোনার কেল্লা প্রথম প্রকাশিত হয় দেশ, শারদীয়া ১৩৭৮ সংখ্যায়; গ্রন্থাকারে প্রথম প্রকাশিত হয় ডিসেম্বর, ১৯৭১ সালে। প্রকাশক আনন্দ পাবলিশার্স প্রাইভেট লিমিটেড। প্রচ্ছদ ও অলঙ্করণ সত্যজিৎ রায়। ‘ফেলুদার সপ্তকাণ্ড’ গ্রন্থে সঙ্কলিত। আনন্দ পাবলিশার্স প্রাইভেট লিমিটেড থেকে প্রথম সংস্করণ প্রকাশিত হয় ১৯৯৮ নভেম্বরে।

বাক্স রহস্য

বাক্স-রহস্য প্রথম প্রকাশ দেশ, শারদীয়া ১৩৭৯ সংখ্যায়; গ্রন্থাকারে প্রথম প্রকাশ ১ বৈশাখ ১৩৮০। প্রকাশক আনন্দ পাবলিশার্স প্রাইভেট লিমিটেড। প্রচ্ছদ ও অলঙ্করণ সত্যজিৎ রায়। ‘ফেলুদার পান্‌চ’ গ্রন্থে সঙ্কলিত প্রথম সংস্করণ আগস্ট ২০০০। প্রকাশক আনন্দ পাবলিশার্স প্রাইভেট লিমিটেড।

কৈলাসে কেলেঙ্গারি

কৈলাসে কেলেঙ্কারি প্রথম প্রকাশিত হয় দেশ, শারদীয়া ১৩৮০ সংখ্যায়; গ্রন্থাকারে প্রথম প্রকাশিত হয় ১ বৈশাখ ১৩৮১ সালে আনন্দ পাবলিশার্স প্রাইভেট লিমিটেড থেকে। প্রচ্ছদ ও অলঙ্করণ সত্যজিৎ রায়। ‘ফেলুদার সপ্তকাণ্ড’ গ্রন্থে সঙ্কলিত হয় নভেম্বর ১৯৯৮ সালে, প্রকাশক আনন্দ পাবলিশার্স প্রাইভেট লিমিটেড।

রয়েল বেঙ্গল রহস্য

রয়েল বেঙ্গল রহস্য লেখা শুরু হয় ১৮ মে ১৯৭৪ সালে। খসড়া খাতায় এর নাম ছিল দুটি— ‘ফেলুদার অরণ্যকাণ্ড’ এবং ‘যেখানে বাঘের ভয়’। প্রথম প্রকাশিত হয় ১৩৮১ বঙ্গাব্দের শারদীয়া দেশে। গ্রন্থাকারে প্রথম প্রকাশিত হয় ১২ বৈশাখ, ১৩৮২তে। প্রকাশক আনন্দ পাবলিশার্স। প্রচ্ছদ ও অলঙ্করণ করেছেন সত্যজিৎ রায়। আগষ্ট ২০০০ সালে আনন্দ পাবলিশার্স প্রকাশিত ‘ফেলুদা পান্‌চ’ গ্রন্থের অন্তর্ভূক্ত হয়ে প্রকাশিত হয়।

জয় বাবা ফেলুনাথ

‘কাশীধামে ফেলুদা’ লেখা শুরু হয় সাত জুন ১৯৭৫ সালে এবং শেষ হয় একুশে জুন ১৯৭৫—মাত্র একুশ দিনে লেখাটি সমাপ্ত করেন সত্যজিৎ রায়। ১৩৮২র শারদীয়া দেশে এটি ‘জয় বাবা ফেলুনাথ’ শিরোনামে প্রকাশিত হয়। প্রচ্ছদ ও অলঙ্করণ করেছেন সত্যজিৎ রায়, প্রকাশক আনন্দ পাবলিশার্স। আনন্দ পাবলিশার্স থেকে প্রকাশিত ‘ফেলুদার সপ্তকাণ্ড’-এ সঙ্কলিত হয় নভেম্বর ১৯৯৮এ।

ঘুরঘুটিয়ার ঘটনা

তোতা রহস্য ১৯৭৫ সালের আগষ্টের পনের তারিখে লেখা শুরু হয়, দুই দিনে অর্থাৎ ষোল তারিখে লেখা শেষ হয়। এটি ‘ঘুরঘুটিয়ার ঘটনা’ নামে ১৩৮২ বঙ্গাব্দের সন্দেশে প্রথম প্রকাশিত হয়। আনন্দ পাবলিশার্স প্রকাশিত ‘আরো একডজন’ গ্রন্থভুক্ত হয়ে প্রকাশিত হয় এপ্রিল ১৯৭৬-এ। প্রচ্ছদ ও অলঙ্করণ সত্যজিৎ রায়ের। ডিসেম্বর ২০০০-এ আনন্দ পাবলিশার্স থেকে প্রকাশিত ‘ফেলুদা একাদশ’ গ্রন্থে পুনঃসঙ্কলিত হয়।

বোম্বাইয়ের বোম্বেটে

বোম্বাইয়ের বোম্বেটে লেখা শেষ হয়েছিল একুশ জুলাই ১৯৭৬-এ। প্রথম প্রকাশিত হয় ১৩৮৩-র শারদীয়া দেশে। ‘ফেলুদা এন্ড কোং’ অন্তর্ভুক্ত হয় ১ বৈশাখ ১৩৮৩-এ। প্রকাশক আনন্দ পাবলিশার্স; প্রচ্ছদ ও অলঙ্করণ সত্যজিৎ রায়। আনন্দ পাবলিশার্স প্রকাশিত ‘ফেলুদা একাদশে সংকলিত হয় ডিসেম্বর ২০০০-এ। চলচ্চিত্রায়িত হওয়ার পর আনন্দ পাবলিশার্স থেকে একটি ‘বিশেষ ফিল্ম এডিশন’ প্রকাশিত হয় জানুয়ারি ২০০৪-এ।

গোঁসাইপুর সরগরম

গোঁসাইপুরের ঠগী রচিত হয় তিন দিনে; এগারো থেকে তেরো আগস্ট ১৯৭৬-এ। শারদীয়া সন্দেশ ১৩৮৩-এ ‘গোঁসাইপুর সরগরম’ শিরোনামে প্রথম প্রকাশিত হয়। ‘ফেলুদা এন্ড কোং’ ভুক্ত হয় ১ বৈশাখ ১৩৮৪-এ আনন্দ পাবলিশার্স থেকে। প্রচ্ছদ ও অলঙ্করণ সত্যজিৎ রায়। আনন্দ প্রকাশিত ‘ফেলুদা একাদশ’ ভুক্ত হয় ডিসেম্বর ২০০০-এ।

গোরস্থানে সাবধান

‘সাবধান গোরস্থান’ উপন্যাসটি রচিত হয় চার দিনে; সাতাশ আগস্ট থেকে পয়লা সেপ্টেম্বর ১৯৭৭-এ। পরে ‘গোরস্থানে সাবধান’ শিরোনামে শারদীয়া দেশে প্রকাশিত হয় ১৩৮৪-এ। আনন্দ পাবলিশার্স থেকে গ্রন্থাকারে প্রকাশিত হয় মে ১৯৭৯-এ। প্রচ্ছদ ও অলঙ্ককরণ সত্যজিৎ রায়। আনন্দ পাবলিশার্স প্রকাশিত ‘কলকাতায় ফেলুদা’ গ্রন্থে সঙ্কলিত হয় জানুয়ারি ১৯৮৮-এ।

ছিন্নমস্তার অভিশাপ

ছিন্নমস্তার অভিশাপ লেখা শুরু হয় ১৯৭৮-এর আট আগস্ট। প্রথম প্রকাশিত হয় শারদীয়া দেশ পত্রিকায় ১৩৮৫ সালে। গ্রন্থাকারে প্রথম প্রকাশিত হয় আনন্দ পাবলিশার্স থেকে ফেব্রুয়ারি ১৯৮১ সালে। প্রচ্ছদ ও অলঙ্করণ সত্যজিৎ রায়। পরবর্তীকালে ‘ফেলুদার পান্‌চ’ গ্রন্থে সঙ্কলিত হয় আগস্ট ২০০০ সালে। প্রকাশক আনন্দ পাবলিশার্স প্রাইভেট লিমিটেড।

হত্যাপুরী

হত্যাপুরী লেখা হয় তেত্রিশ দিনে। লেখা শুরু হয় জুলাইয়ের ঊনিশ তারিখে শেষ আগস্টের বিশ তারিখে, ১৯৭৯ সাল। প্রথম প্রকাশিত হয় শারদীয়া সন্দেশ ১৩৮৬-তে। গ্রন্থাকারে প্রথম প্রকাশিত হয় ১ বৈশাখ ১৩৮৮-এ। প্রকাশক আনন্দ পাবলিশার্স। প্রচ্ছদ ও অলঙ্করণ সত্যজিৎ রায়। ‘ফেলুদা সপ্তকাণ্ড’ গ্রন্থে সঙ্কলিত হয় নভেম্বর ১৯৯৮ সালে। প্রকাশক আনন্দ পাবলিশার্স।

গোলকধাম রহস্য

প্রফেসর দাশগুপ্তের ফরমুলা লেখা শুরু হয় ১৯৮০ সালের ঊনিশে এপ্রিল, শেষ হয় সাতাশে এপ্রিল। নয় দিনে লিখিত গল্পটি প্রথম প্রকাশিত হয় ১৩৮৭ বঙ্গাব্দের বৈশাখ থেকে শ্রাবণ সংখ্যা সন্দেশে। সেপ্টেম্বর ১৯৮১ সালে আনন্দ পাবলিশার্স থেকে ‘আরো বারো’ গ্রন্থভুক্ত হয়ে প্রকাশিত হয়। ‘কলকাতায় ফেলুদা’ গ্রন্থে সঙ্কলিত হয় জানুয়ারি ১৯৯৮ সালে। প্রকাশক আনন্দ পাবলিশার্স।

যত কাণ্ড কাঠমাণ্ডুতে

যত কাণ্ড কাঠমাণ্ডুতে লেখা হয় বাইশ দিনে; লেখা শুরু পাঁচই জুলাই শেষ হয় ছাব্বিশে জুলাই ১৯৮০-এ। প্রথম প্রকাশিত হয় শারদীয়া দেশ ১৩৮৭ সংখ্যায়। গ্রন্থাকারে প্রকাশিত হয় আগস্ট ১৯৮২-এ আনন্দ পাবলিশার্স থেকে। প্রচ্ছদ ও অলঙ্করণ সত্যজিৎ রায়। ‘পাহাড়ে ফেলুদা’ গ্রন্থভুক্ত হয় জানুয়ারি ১৯৯৬-এ। প্রকাশক আনন্দ পাবলিশার্স প্রাইভেট লিমিটেড।

নেপোলিয়নের চিঠি

নেপোলিয়নের চিঠি রচিত হয় ছয় দিনে, চব্বিশ থেকে ঊনত্রিশ জুলাই ১৯৮১-এ। প্রথম প্রকাশিত হয় শারদীয়া সন্দেশ ১৩৮৮-এ। ‘ফেলুদা ওয়ান ফেলুদা টু’ গ্রন্থভুক্ত হয় জানুয়ারি ১৯৮৫-এ। প্রকাশক আনন্দ পাবলিশার্স। ‘ফেলুদা একাদশ’ গ্রন্থে সঙ্কলিত হয় ডিসেম্বর ২০০০-এ। প্রকাশক আনন্দ পাবলিশার্স প্রাইভেট লিমিটেড।

টিনটোরেটোর যীশু

টিনটোরেটোর যীশু রচিত হয় সাত দিনে, পাঁচ থেকে এগারো এপ্রিল ১৯৮২-এ। প্রথম প্রকাশ শারদীয়া দেশ পত্রিকায়, ১৩৮৮। গ্রন্থাকারে প্রকাশ সেপ্টেম্বর ১৮৯৩ সালে আনন্দ পাবলিশার্স থেকে। প্রচ্ছদ ও অলঙ্করণ সত্যজিৎ রায়। ‘ফেলুদা পান্‌চ’ গ্রন্থে সঙ্কলিত হয় আগস্ট ২০০০ সালে আনন্দ পাবলিশার্স প্রাইভেট লিমিটেড থেকে।

অম্বর সেন অন্তর্ধান রহস্য

অম্বর সেন অন্তর্ধান রহস্য রচিত হয় তিন দিনে, চার থেকে ছয় ফেব্রুয়ারি ১৯৮৩-এ। প্রথম ধারাবাহিকভাবে প্রকাশিত হয় আনন্দমেলায় ১৯৮৩ সালের ৪ ও ১৮ মে এবং ১ ও ১৫ জুন সংখ্যায়। আনন্দ পাবলিশার্স থেকে ‘এবারো বারো’ গ্রন্থভুক্ত হয়ে প্রকাশিত হয় ২ মে ১৯৮৪-এ। ‘কলকাতায় ফেলুদা’ গ্রন্থে সঙ্কলিত হয় জানুয়ারি ১৯৮৮-এ। প্রকাশক আনন্দ পাবলিশার্স।

জাহাঙ্গীরের স্বর্ণমুদ্রা

নন্দন কানন রহস্য রচিত হয় চার দিনে, একুশ থেকে চব্বিশ জুলাই ১৯৮৩-এ। জাহাঙ্গীরের স্বর্ণমুদ্রা শিরোনামে প্রথম প্রকাশিত হয় ১৩৯০ সালের শারদীয়া সন্দেশে। ‘এবারো বারো’ গ্রন্থভুক্ত হয়ে প্রকাশিত হয় ২ মে ১৯৮৪ সালে আনন্দ পাবলিশার্স থেকে। ‘ফেলুদা একাদশ’ গ্রন্থে সঙ্কলিত হয় ডিসেম্বর ২০০০ আনন্দ পাবলিশার্স থেকে।

এবার কাণ্ড কেদারনাথে

কেদারদা, বদ্রিদা আর ফেলুদা শিরোনামে রচনা শুরু হয় ছয় নভেম্বর ১৯৮৩-তে, মাঝে বিরতি দিয়ে আবার শুরু করেন চৌদ্দ নবেম্বর এবং শেষ করেন তেইশ নবেম্বর। মোট সময় এগারো দিন। প্রথম প্রকাশিত হয় শারদীয়া দেশ পত্রিকায় ১৩৯১ সালে। ‘ফেলুদা ওয়ান, ফেলুদা টু’ গ্রন্থভুক্ত হয়ে প্রথম প্রকাশিত হয় জানুয়ারি ১৯৮৫ সালে। ‘পাহাড়ে ফেলুদা’ গ্রন্থে সঙ্কলিত হয় জানুয়ারি ১৯৯৬ সালে। প্রকাশক আনন্দ পাবলিশার্স প্রাইভেট লিমিটেড।

বোসপুকুরে খুনখারাবি

বোসপুকুরের মামলা/ ফেলুদা করল ফাঁস রচিত হয়েছিল ছয় দিনে। লেখা শুরু হয়েছিল ১৮ ফেব্রুয়ারি শেষ করেন ২৩ ফেব্রয়ারি ১৯৮৫-এ। প্রথম প্রকাশিত হয় শারদীয়া সন্দেশ ১৩৯২-এ। ‘একের পিঠে দুই’ গ্রন্থভুক্ত হয়ে প্রকাশিত হয় জানুয়ারি ১৯৮৮-এ আনন্দ পাবলিশার্স থেকে। ‘কলকাতায় ফেলুদা’ গ্রন্থে সঙ্কলিত হয় জানুয়ারি ১৯৯৮-এ, প্রকাশক আনন্দ পাবলিশার্স প্রাইভেট লিমিটেড।

দার্জিলিং জমজমাট

হিল স্টেশনে হত্যাকাণ্ড নামে একটা কাহিনী লিখেছিলেন ছয় দিনে। ১৯৮৬ সালের ফেব্রুয়ারি মাসের আঠারো থেকে তেইশ তারিখ। সে কাহিনী ‘দার্জিলিং জমজমাট’ নামে শারদীয়া দেশে প্রকাশিত হলো ১৩৯৩ সালে। সত্যজিৎ রায়ের প্রচ্ছদ ও অলঙ্করণ সমেত আনন্দ পাবলিশার্স থেকে গ্রন্থাকারে প্রকাশিত হলো ১৯৮৭-এর সেপ্টেম্বরে। আনন্দ পাবলিশার্স প্রকাশিত ‘পাহাড়ে ফেলুদা’ গ্রন্থে সঙ্কলিত হয়েছিল ১৯৯৬-এর জানুয়ারিতে।

ভূস্বর্গ ভয়ঙ্কর

‘ভূস্বর্গ ভয়ঙ্কর’ গল্পটি লিখিত হলো একত্রিশ মার্চ থেকে তিন এপ্রিল ১৯৮৭-এ, মাত্র চার দিনে। প্রথম প্রকাশিত হয় শারদীয়া দেশ, ১৩৯৪-এ। ‘ডবল ফেলুদা’ গ্রন্থের অন্তর্ভুক্ত হয়ে আনন্দ পাবলিশার্স থেকে প্রকাশিত হলো সেপ্টেম্বর ১৯৮৯-এ। ‘পাহাড়ে ফেলুদা’ গ্রন্থে সঙ্কলিত হলো জানুয়ারি ১৯৯৬-এ। প্রকাশক আনন্দ পাবলিশার্স।

ইন্দ্রজাল রহস্য

ইন্দ্রজাল রহস্য রচিত হয় বাইশ থেকে ছাব্বিশে আগস্ট ১৯৮৭, পাঁচ দিনে। প্রথম প্রকাশিত হয় সন্দেশে অগ্রহায়ণ-মাঘ ১৪০২ সংখ্যায়। ‘কলকাতায় ফেলুদা’ গ্রন্থে সঙ্কলিত হয় জানুয়ারি ১৯৯৮-এ। প্রকাশক আনন্দ পাবলিশার্স, অলঙ্করণ সুব্রত গঙ্গোপাধ্যায়।

অপ্সরা থিয়েটারের মামলা

পাঁচ মে থেকে সাত মে ১৯৮৭, মাত্র তিন দিনে লেখা হলো ‘অপ্সরা মঞ্চের মামলা’। ১৩৯৪ সালের শারদীয়া সন্দেশে প্রথম প্রকাশিত হলো ‘অপ্সরা থিয়েটার মামলা’ নামে। গ্রন্থভুক্ত হলো সেপ্টেম্বর ১৯৮৯-এ। আনন্দ পাবলিশার্স প্রকাশিত ‘ডবল ফেলুদা’য়। আনন্দ প্রকাশিত ‘কলকাতায় ফেলুদা’ গ্রন্থে সঙ্কলিত হলো জানুয়ারি ১৯৯৮ সালে।

শকুন্তলার কণ্ঠহার

তেরো থেকে পনেরো জানয়ারি ১৯৮৮; তিন দিনে রচিত হলো কণ্ঠহার রহস্য। প্রথম প্রকাশিত হয় শারদীয়া দেশ, ১৩৯৫-এ। ‘জবর বারো’ গ্রন্থভুক্ত হয়ে প্রকাশিত হয় মে ১৯৯৬-এ। প্রকাশক আনন্দ পাবলিশার্স, এই কাহিনীর অলঙ্করণ করেন সমীর সরকার। ‘ফেলুদার সপ্তকাণ্ড’ গ্রন্থে সঙ্কলিত হলো নভেম্বর ১৯৯৮-এ। প্রকাশক আনন্দ পাবলিশার্স প্রাইভেট লিমিটেড।

ডা. মুন্সীর ডায়রি

খসড়া খাতায় নাম ‘ডা. নন্দীর ডায়রি’—রচনাকাল ১৯ থেকে ২৩ জুন, ১৯৮৯—পাঁচ দিনে। প্রথম প্রকাশিত হয় শারদীয়া সন্দেশ ১৩৯৭-এ। ‘বা! বারো’ গ্রন্থভুক্ত হয়ে প্রকাশিত হয় জানুয়ারি ১৯৯৪-এ। ‘কলকাতায় ফেলুদা’ গ্রন্থে সঙ্কলিত হয় জানুয়ারি ১৯৯৮-এ। প্রকাশক আনন্দ পাবলিশার্স প্রাইভেট লিমিটেড।

গোলাপী মুক্তা রহস্য

২৩ জুন থেকে ২৬ জুন, ১৯৮৯—চার দিনে রচিত হলো গোলাপী মুক্তার মালা। প্রথম প্রকাশিত হয় শারদীয়া দেশ, ১৩৯৬-এ। ‘ফেলুদা প্লাস ফেলুদা’ গ্রন্থের অন্তর্ভুক্ত হয়ে প্রকাশিত হয় ২ মে ১৯৯২-এ। ‘ফেলুদা একাদশ’ গ্রন্থে সঙ্কলিত হয় ডিসেম্বর ২০০০-এ। প্রকাশক আনন্দ পাবলিশার্স প্রাইভেট লিমিটেড।

লণ্ডনে ফেলুদা

২৭ জুন থেকে ২৯ জুন, ১৯৮৯—তিন দিনে রচিত হলো লণ্ডনে ফেলুদা। প্রথম প্রকাশিত হয় শারদীয়া দেশ, ১৩৯৬-এ। ‘ফেলুদা প্লাস ফেলুদা’ গ্রন্থের অন্তর্ভুক্ত হয়ে প্রকাশিত হয় ২ মে ১৯৯২-এ। ‘ফেলুদা একাদশ’ গ্রন্থে সঙ্কলিত হয় ডিসেম্বর ২০০০-এ। প্রকাশক আনন্দ পাবলিশার্স প্রাইভেট লিমিটেড।

নয়ন রহস্য

নয়ন রহস্য প্রথম প্রকাশিত হয় ১৩৯৭ সালের শারদীয়া দেশ পত্রিকায়। গ্রন্থাকারে প্রথম প্রকাশ জানুয়ারি ১৯৯১, আনন্দ পাবলিশার্স প্রাইভেট লিমিটেড থেকে। ‘ফেলুদা পান্‌চ’ গ্রন্থে সঙ্কলিত হয় আগস্ট ২০০৩। প্রকাশক আনন্দ পাবলিশার্স প্রাইভেট লিমিটেড।

রবার্টসনের রুবি

রবার্টসনের রুবি প্রথম প্রকাশিত হয় ১৩৯৯ সালের শারদীয়া দেশ পত্রিকায়। গ্রন্থাকারে প্রথম প্রকাশ ২ মে ১৯৯৪, আনন্দ পাবলিশার্স প্রাইভেট লিমিটেড থেকে। প্রচ্ছদ ও অলঙ্করণ সুব্রত গঙ্গোপাধ্যায়। ‘ফেলুদা একাদশ’ গ্রন্থে সঙ্কলিত হয় ডিসেম্বর ২০০০। প্রকাশক আনন্দ পাবলিশার্স প্রাইভেট লিমিটেড।

অসমাপ্ত ফেলুদা

সত্যজিৎ রায় একটা কাহিনী শুরু করে অসমাপ্ত রেখেই অন্য কাহিনী শুরু করতেন। আবার অনেক গল্পের পরিবর্তনও করতেন। তেমনি কিছু কাহিনীর খসড়া যা পরিত্যক্ত হয়েছিল অথবা তিনি লিখে শেষ করেননি—সে সব কাহিনী নিয়েই অসমাপ্ত ফেলুদা।

খসড়া খাতায় ফেলুদা

ভারী বিপদে পড়লাম। সন্দেশ’-এর এই বিশেষ সংখ্যায় ফেলুদাকে নিয়ে এতজনে লিখছেন যে, বিষয়ের মিল হয়ে যাবার একটা আশঙ্কা থাকে। এখন এই সমস্যাকে এড়ানো যায় কীভাবে? অগত্যা সব থেকে নিরাপদ রাস্তাটাই বেছে নিলাম—ফিরে গেলাম বাবার খসড়া খাতায়। এ-খাতা কিন্তু ওর বিখ্যাত লাল খেরোর কাপড় দিয়ে বাঁধানো ফিল্মের খাতা নয়—পার্ক স্ট্রিটের অক্সফোর্ড বুক কোম্পানি থেকে কেনা হার্ড কভারের খাতা—যার উপর সোনার জল দিয়ে ছোট্ট করে লেখা: ‘নোটস’। ১৯৬১ সাল, অর্থাৎ, নতুন সন্দেশ’-এর প্রথম বছর থেকে এই খাতা কেনা শুরু হয়, এবং সেই অভ্যাস বজায় থাকে ১৯৯১ অবধি। এই তিরিশ বছরের প্রায় ৭০-৮০টা খাতা থেকে ফেলুদাকে নিয়ে যে কত অজানা তথ্য বেরিয়ে ...

ফেলুচাঁদ

ফেলুদার গল্প যারা পড়েনি, তারা ঠকেছে! ভাল জিনিস উপভোগ না করতে পারার দুঃখ আর কিছুতে নেই। মূল বাংলা ভাষায় যারা পড়তে পাবে না, তাদের জন্য অন্তত পাঁচটা ভারতীয় ভাষা এবং চারটে বিদেশি ভাষায় ফেলুদা কাহিনী অনুবাদ হয়েছে বলে জানি, এ বড় সুখের কথা! অবিশ্যি নিরক্ষর লোকেরাও দুনিয়া জুড়ে গোয়েন্দা ফেলু মিত্তিরকে চেনে, ড্যাবড্যাব করে সিনেমায় দেখতে পায় বলে। লেখক নিজেই ফেলুদার দুটো খাসা গল্প নিয়ে জমজমাট চলচ্চিত্র বানিয়েছেন। জানিস, ফেলুদার মগজের ক্যারামতিতে মুগ্ধ হয়ে, আড়ালে ওঁকে আমি ফেলুচাঁদ বলে ডাকি!

ফেলুদার গল্প-উপন্যাসগুলো লেখা হয়েছে তোপ্‌সের জবানিতে, যার বয়েস ১৯৬৫ সালে ছিল সাড়ে তেরো, তারপর ২৬ বছরে (ফেলুচাঁদের শেষ উপাখ্যান ...

সমাদ্দারের চাবি

সমাদ্দারের চাবি প্রথম প্রকাশিত হয় সন্দেশ, শারদীয়া ১৩৮০ সংখ্যায়; গ্রন্থাকারে প্রথম প্রকাশিত হয় ‘আরো এক ডজন’ গ্রন্থের অন্তর্ভূক্ত হয়ে এপ্রিল ১৯৭৬-এ আনন্দ পাবলিশার্স প্রাইভেট লিমিটেড থেকে। প্রচ্ছদ ও অলঙ্করণ সত্যজিৎ রায়। জানুয়ারি ১৯৯৬-এ ‘ফেলুদা একাদশ’ গ্রন্থের অন্তর্ভূক্ত হয়ে আনন্দ পাবলিশার্স প্রাইভেট লিমিটেড থেকে প্রকাশিত হয়।

গ্রন্থাবলী
মতামত জানান