web analytics

রম্যরচনা > টুনি মেম

সৈয়দ আলী আহসানের স্বাধীনতাপূর্ব বঙ্গ-আসামের চা-বাগান অঞ্চলকে প্রেক্ষাপট করে লেখা প্রচুর সাহিত্যকর্মের অন্যতম টুনি মেম। এটি লেখকের শেষ বয়সের রচনা। গল্পকথনের স্থান সেই ট্রেনের কামরা, গল্পের বিষয়বস্তু সেই ইংরেজ সাহেবের সাথে দেশী রমণীর লাম্পট্য। গল্পটি শুরু যদিও একটি রহস্যময় খুন দিয়ে, কিন্তু সেই রহস্য লেখক বেশি বজায় দূর রাখেননি। বাকিটুকু জুড়ে টুনি মেমের মতোই গল্পটি অমোঘ শেষের দিকে শুধু এগোতে থাকে। লেখকের সুবিদিত ভাষা ও শব্দের অগাধ পাণ্ডিত্য ও তার সুললিত ব্যবহার এবং কদাচিৎ-কদাচিৎ মানব চরিত্র বিশ্লেষণের চেষ্টা বা তার ইঙ্গিতমাত্র পাঠককে মুগ্ধ করবে।
টুনি মেমের উপলভ্য সংস্করণ

© ভারতীয় কপিরাইট আইন, ১৯৫৭ অনুসারে সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত

এই বইটির স্বত্বাধিকার লেখক বা লেখক নির্ধারিত ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের, অর্থাৎ বইটি পাবলিক ডোমেইনের আওতাভূক্ত নয়৷ কেননা, যে সকল বইয়ের উৎস দেশ ভারত এবং ভারতীয় কপিরাইট আইন, ১৯৫৭ অনুসারে, লেখকের মৃত্যুর ষাট বছর পর স্বনামে ও জীবদ্দশায় প্রকাশিত অথবা বেনামে বা ছদ্মনামে ও মরণোত্তর প্রকাশিত রচনা বা গ্রন্থসমূহ প্রথম প্রকাশের ষাট বছর পর পঞ্জিকাবর্ষের সূচনা থেকে কপিরাইট মেয়াদ উত্তীর্ণ হয়ে যায়৷ অর্থাৎ, ১ জানুয়ারি, 2019 সাল হতে 1959 সালের পূর্বে প্রকাশিত (বা পূর্বে মৃত লেখকের) সকল রচনা পাবলিক ডোমেইনের আওতাভুক্ত হবে। এবং 1959 সালের পরে প্রকাশিত বা মৃত লেখকের বইসমূহ পাবলিক ডোমেইনের আওতাভূক্ত হবে না৷

আইনি সতর্কতা

প্রকাশক এবং স্বত্বাধিকারীর লিখিত অনুমতি ছাড়া এই বইয়ের কোনও অংশেরই কোনওরূপ পুনরুৎপাদন বা প্রতিলিপি করা যাবে না, কোন যান্ত্রিক উপায়ের (গ্রাফিক, ইলেকট্রনিক বা অন্য কোনও মাধ্যম, যেমন ফটোকপি, টেপ বা পুনরুদ্ধারের সুযোগ সম্বলিত তথ্য-সঞ্চয় করে রাখার কোনও পদ্ধতি) মাধ্যমে প্রতিলিপি করা যাবে না বা কোন ডিস্ক, টেপ, পারফোরেটেড মিডিয়া বা কোনও তথ্য সংরক্ষণের যান্ত্রিক পদ্ধতিতে পুনরুৎপাদন করা যাবে না। এই শর্ত লঙ্ঘিত হলে উপযুক্ত আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করা যাবে।

Leave a Reply

WhatsApp chat