web analytics

কথা সাহিত্য > গল্প > অবরোধবাসিনী

অবরোধ বাসিনী ভারতবর্ষের সমাজবাদী বাঙ্গালী বেগম রোকেয়ার লেখা একটি গ্রন্থ। এ গ্রন্থ ১৯৩১ সালে প্রকাশিত হয়। এতে তৎকালিন ভারতবর্ষীয় নারী বিশেষ করে মুসলমান ঘরের নারীদের সমাজের কঠোর পর্দা প্রথার জন্য যে অসুবিধায় পরতে হত তা লেখা হয়েছে। মোট ৪৭ ঘটনাকে অনুগল্প আকারে লেখে বইটি তৈরি করা হয়েছে। ঘটনাগুলো সব বাস্তব জীবন থেকে নেওয়া। অনেকের মতে বইটি বেগম রোকেয়ার শ্রেষ্ঠ বই। এ বই এর মাধ্যমে বেগম রোকেয়া গল্পাকারে পর্দা প্রথার ফলে নারীদের কষ্ঠ সবার কাছে উপস্থাপন করেছেন।
বইটিতে কোন বিষয় নিয়ে আলোচনা করা হয়েছে তা বইতে উল্লেখিত লেখিকার মন্তব্য পড়লে বোঝা যায়। লেখিকা বলেছেন—
আমরা বহু কাল হইতে অবরোধ থাকিয়া থাকিয়া অভ্যস্ত হইয়া গিয়াছি সুতরাং অবরোধের বিরুদ্ধে বলিবার আমাদের — বিশেষতঃ আমার কিছুই নাই। মেছোণীকে যদি জিজ্ঞাসা করা যায় যে, “পচা মাছের দুর্গন্ধ ভাল না মন্দ?”—সে কি উত্তর দিবে?
এস্থলে আমাদের ব্যক্তিগত কয়েকটি ঘটনার বর্ণনা পাঠিকা ভগিনীদেরকে উপহার দিব — আশা করি, তাঁহাদের ভাল লাগিবে।
এস্থলে বলিয়া রাখা আবশ্যক যে গোটা ভারতবর্ষে কুলবালাদের অবরোধ কেবল পুরুষের বিরুদ্ধে নহে, মেয়েমানুষদের বিরুদ্ধেও। অবিবাহিতা বালিকাদিগকে অতি ঘনিষ্ঠ আত্মীয়া এবং বাড়ীর চাকরাণী ব্যতীত অপর কোন স্ত্রীলোকে দেখিতে পায় না।
বিবাহিতা নারীগণও বাজীকর — ভানুমতী ইত্যাদি তামাসাওয়ালী স্ত্রীলোকদের বিরুদ্ধে পর্দ্দা করিয়া থাকেন। যিনি যত বেশী পর্দ্দা করিয়া গৃহকোণে যত বেশী পেঁচকের মত লুকাইয়া থাকিতে পারেন, তিনিই তত বেশী শরীফ।
শহরবাসিনী বিবিরাও মিশনারী মেমদের দেখিলে ছুটাছুটি করিয়া পলায়ন করেন। মেম ত মেম — সাড়ী পরিহিতা খ্রীষ্টান বা বাঙ্গালী স্ত্রীলোক দেখিলেও তাঁহারা কামরায় গিয়া অর্গল বন্ধ করেন।
Read online or Download this book
বইটির উৎস দেশ বাংলাদেশ এবং বাংলাদেশ কপিরাইট আইন, ২০০০ অনুসারে, লেখকের মৃত্যুর ষাট বছর পর স্বনামে ও জীবদ্দশায় প্রকাশিত অথবা বেনামে বা ছদ্মনামে ও মরণোত্তর প্রকাশিত রচনা বা গ্রন্থসমূহ প্রথম প্রকাশের ষাট বছর পর পঞ্জিকাবর্ষের সূচনা থেকে কপিরাইট মেয়াদ উত্তীর্ণ হয়ে যায়৷ অর্থাৎ, ১ জানুয়ারি 2019 সালে, 1959 সালের পূর্বে প্রকাশিত (বা পূর্বে মৃত লেখকের) সকল রচনা পাবলিক ডোমেইনের আওতাভুক্ত হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

WhatsApp chat