web analytics

কথা সাহিত্য > উপন্যাস > আমারও একটা প্রেমকাহিনি আছে

এযাবৎ আনিসুল হকের তিনটি উপন্যাস আমি পড়েছি—মা, না-মানুষি জমিন ও আমারও একটা প্রেমকাহিনি আছে৷ যতদূর জানি, গ্যব্রিয়েল গার্সিয়া মার্কেস হকের একজন প্রিয় লেখক৷ তাই কি তাঁর আমারও একটা প্রেমকাহিনি আছে উপন্যাসে ‘মার্কেসীয় ঢং’-এর আঁচড় স্পষ্ট হয়ে উঠেছে? উপন্যাসে চরিত্র হিসেবে লেখকের সক্রিয় উপস্থিতি আমাকে মার্কেসের নানা উপন্যাস ও ছোটগল্পের কথা মনে করিয়ে দেয়৷ শুরুতেই দেখা যায়, লেখক প্লট খুঁজছেন৷ তিনি ‘ভিজিটিং রাইটার’ হিসেবে এক মাসের জন্য গেছেন আমেরিকার ব্রাউন বিশ্ববিদ্যালয়ে৷ সেখানে বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ইভা নামের এক মেয়ে নিজের প্রেমকাহিনি শোনায় তাঁকে৷ ইভার প্রেমিকের নাম শুভ৷ সে ইভার বাবার বন্ধুর ছেলে৷ বাল্যকালে তাদের ঘনিষ্ঠতা দেখে দুই পরিবারই পরিণত বয়সে তাদের বিয়ে দেবে বলে ঠিক করে রাখে৷ এভাবেই এগোতে থাকে গল্প৷ দুই. ইভা চারুকলায় পড়েছে৷ শুভ ভারতের আইআইটি থেকে উচ্চতর ডিগ্রি নিয়েছে৷ পরিণত বয়সে ইভা ও শুভ সত্যি সত্যি একে অপরের প্রেমে জড়িয়ে পড়ে৷ ইভার বলা গল্প লেখক আগ্রহভরে শুনতে থাকেন৷ লেখক এ প্রসঙ্গে কবি শক্তি চট্টোপাধ্যায়কে উদ্ধৃতি দিয়ে বলেন, ‘মানুষের ভালোবাসা মানুষেরই কাছে দামি৷’ ইভা জানায়, তাদের প্রেমে দেহ ও মন উভয়েরই মিলন হয়েছে৷ একদিন প্রেমাসক্ত ইভা ও শুভ একে অপরকে দেহ-মন উজাড় করে দিয়ে ঘুমিয়ে পড়ে৷ ঘুম থেকে উঠে শুভ বাথরুমে যায়৷ হঠাৎ তার মুঠোফোনে একটি মেসেজ আসে৷ ইভা কোনো রকম উদ্দেশ্য ছাড়া এমনিতেই মেসেজটি দেখে৷ ঘটনাটি এ রকম: শুভ ফেসবুকে একটি মেয়ের সঙ্গে আপত্তিকর ভাষায় কথা বলে৷ বলতে গেলে ভার্চুয়ালি ওই মেয়ের প্রেমে পড়ে যায় সে৷ এদিকে শুভর ফেসবুক ইনবক্সে ঢুকে কথাগুলো পড়ার পর ইভার নিষ্পাপ ভালোবাসা যায় দুমড়ে-মুচড়ে৷ একপর্যায়ে শুভর সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করে ইভা৷ এ ঘটনার পরপরই সে চলে যায় আমেরিকা, একটা ওয়ার্কশপে যোগ দিতে৷ সেখানে ঠিক শুভর মতো দেখতে সুদীপ নামের এক নেপালি ছেলের সঙ্গে তার পরিচয় হয়৷ মজার ব্যাপার হলো, ইভা লেখককে একই সঙ্গে দুটি গল্প শোনাচ্ছে৷ একবার সুদীপের কথা বলছে তো আরেকবার শুভর সঙ্গে কাটানো দিনগুলোর বর্ণনা দিচ্ছে৷ যা হোক, ইভা সুদীপের মধ্যে শুভকে খুঁজে বেড়ায়৷ আর সুদীপ ইভাকে বোঝায় যে ইভা মূলত সুদীপকে ভালোবাসার মধ্য দিয়ে প্রকারান্তরে শুভকেই ভালোবাসে৷ তবে কি এখন ইভা ফিরে যাবে শুভর কাছে? ফিরে গেলে কি শুভর হারানো ভালোবাসা পাবে সে? তিন. এবার এ উপন্যাসের যে বিষয়গুলো আনিসুল হককে বিশিষ্টতা দিয়েছে, সেসব নিয়ে একটু বলি৷ উপন্যাসের প্রতিটি অধ্যায়ের শুরু লেখকের কোনো না কোনো প্রিয় কবির কবিতার কয়েক পঙ্ক্তি দিয়ে৷ ধারাটি সমসাময়িক বাংলা সাহিত্যে বিরল৷ ‘ইভার কথা’ শিরোনামে লেখক ইভা নামের মেয়েটির প্রেমকাহিনি শুনছেন৷ আবার ‘আমার কথা’ শিরোনামে গল্প নিয়ে তাঁর নিজের ভাবনা, অনুভূতির কথা জানাচ্ছেন লেখক৷ বাংলা সাহিত্যে গল্প বলার যে ঐতিহ্য রয়েছে, এ উপন্যাসে লেখক মনে হয় সেই ঐতিহ্যের প্রতি বিশ্বস্ত থেকেছেন৷ উত্তরাধুনিক উপন্যাসের একটি অন্যতম উপাদান হাস্যরস কিংবা হিউমার৷ আনিসুল হকের উপন্যাসটিতে তা যথেষ্টই আছে৷ লেখক নিজেই যখন কোনো উপন্যাস বা গল্পের সক্রিয় চরিত্র হয়ে থাকেন, তখন এর আমেজটা ভিন্ন হয় এবং আমি-আপনি সবাই লেখকের নিজ ভুবনের বাসিন্দা হয়ে যাই৷ এ ক্ষেত্রে মার্কেস ও হকের মধ্যে চমৎকার এক সাযুজ্য আছে৷ আমারও একটা প্রেমকাহিনি আছে-তে আনিসুল হক যে গল্প আমাদের শুনিয়েছেন, তা সরলরৈখিক নয়৷ এটি প্রাপ্তমনস্কের একটি সংবেদী গল্প, যার শুরুটা স্পষ্ট, শেষটা ধূসর৷
Read online or Download this book

© বাংলাদেশ কপিরাইট আইন, ২০০০ অনুসারে সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত

এই বইটির স্বত্বাধিকার লেখক বা লেখক নির্ধারিত ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের, অর্থাৎ বইটি পাবলিক ডোমেইনের আওতাভূক্ত নয়৷ কেননা, যে সকল বইয়ের উৎস দেশ বাংলাদেশ এবং বাংলাদেশ কপিরাইট আইন, ২০০০ অনুসারে, লেখকের মৃত্যুর ষাট বছর পর স্বনামে ও জীবদ্দশায় প্রকাশিত অথবা বেনামে বা ছদ্মনামে ও মরণোত্তর প্রকাশিত রচনা বা গ্রন্থসমূহ প্রথম প্রকাশের ষাট বছর পর পঞ্জিকাবর্ষের সূচনা থেকে কপিরাইট মেয়াদ উত্তীর্ণ হয়ে যায়৷ অর্থাৎ, ১ জানুয়ারি, 2019 সাল হতে 1959 সালের পূর্বে প্রকাশিত (বা পূর্বে মৃত লেখকের) সকল রচনা পাবলিক ডোমেইনের আওতাভুক্ত হবে। এবং 1959 সালের পরে প্রকাশিত বা মৃত লেখকের বইসমূহ পাবলিক ডোমেইনের আওতাভূক্ত হবে না৷

আইনি সতর্কতা

প্রকাশক এবং স্বত্বাধিকারীর লিখিত অনুমতি ছাড়া এই বইয়ের কোনও অংশেরই কোনওরূপ পুনরুৎপাদন বা প্রতিলিপি করা যাবে না, কোন যান্ত্রিক উপায়ের (গ্রাফিক, ইলেকট্রনিক বা অন্য কোনও মাধ্যম, যেমন ফটোকপি, টেপ বা পুনরুদ্ধারের সুযোগ সম্বলিত তথ্য-সঞ্চয় করে রাখার কোনও পদ্ধতি) মাধ্যমে প্রতিলিপি করা যাবে না বা কোন ডিস্ক, টেপ, পারফোরেটেড মিডিয়া বা কোনও তথ্য সংরক্ষণের যান্ত্রিক পদ্ধতিতে পুনরুৎপাদন করা যাবে না। এই শর্ত লঙ্ঘিত হলে উপযুক্ত আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করা যাবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

WhatsApp chat