বাল্যরচনা » বাল্যরচনা

পাতা তৈরিজানুয়ারি ২৭, ২০১৮; ১৮:২৩
সম্পাদনাসেপ্টেম্বর ২৫, ২০২০, ২২:২৪
দৃষ্টিপাত
বাল্যরচনা বিষয়ে বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায় লিখেছেন—
এই কবিতাগুলি লেখকের পঞ্চদশ বৎসর বয়সে লিখিত। লিখিত হওয়ার তিন বৎসর পরে মুদ্রিত ও প্রকাশিত হয়। প্রকাশিত হইয়া বিক্রেতার আলমারীতেই পচে-বিক্রয় হয় নাই। তাহার পর আর এ সকল পুনর্মুদ্রিত করিবার যোগ্য বিবেচনা করি নাই, এখনও আমার এমন বিবেচনা হয় না যে, ইহা পুনর্মুদ্রিত করা বিধেয়। বাল্যকালে কিরূপ লিখিয়াছিলাম, তাহা দেখাইয়া বাহাদুরী করিবার ভরসা কিছুমাত্র নাই; কেন না, অনেকেই অল্প বয়সে এরূপ কবিতা লিখিতে পারে। যাহা অপাঠ্য, তাহা বালক প্রণীত হউক, বা বৃদ্ধপ্রণীত হউক, তুল্যরূপে পরিহার্য্য। অতএব কিছু পরিবর্ত্তন না করিয়া “ললিতা” নামক কাব্যখানি পুনর্মুদ্রিত করিতে পারিলাম না। “মানস” নামক কাব্যখানিতে পরিবর্ত্তন বড় সহজ নহে, এ জন্য সে চেষ্টা করিলাম না। তথাপি সামান্যরূপ পরিবর্ত্তন করা গিয়াছে।
ললিতা ও মানস ব্যতীত বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের বাল্যে লিখিত আরও কিছু রচনা বিভিন্ন সংবাদ পত্র ও সাময়িক পত্রে ছড়িয়ে আছে, অগ্রন্থিত সে সব রচনা আমরা বাল্যরচনার সাথে যুক্ত করে দিয়েছি।
সূচী
গ্রন্থাবলী
মতামত জানান