web analytics

অভিযান > রুনু-টুনুর অ্যাডভেঞ্চার

গল্প সংক্ষেপ: বাগানে খেলা করছিল টুনু। সেই বাগান পেরুলেই মস্ত বন। খেলার এক ফাঁকে সে দেখতে পেল মস্ত বড় এক প্রজাপতি একটি ফুলের উপর রুনুর মতো করে খেলা করছে। টুনুর খুব লোভ হলো প্রজাপতিকে ধরার। যা ভাবা তাই কাজ… চুপি চুপি এগিয়ে গেল প্রজাপতিটির দিকে কিন্তু যেমনি ধরতে যাবে অমনি প্রজাপতিটি উড়ে গেল আর গিয়ে বসল অন্য একটি ফুলের উপর। টুনুও নাছড়বান্দা। সেও ছুটে বলল প্রজাপতির পিছু পিছু। প্রজাপতি উড়ে চলে, টুনুও পিছু পিছু দৌড়ে চলে। দৌড়তে দৌড়তে কখন যে টুনু বাগানের বেড়া ডিঙিয়ে বনের মাঝে চলে এসেছে তা সে বুঝতে পারে না। একটা সময় প্রজাপতিটি ধরা দিয়ে বনের মাঝে মিলিয়ে যায় আর তখনই টুনুর মনে হয় সে এসে পড়েছে একেবারে অপরিচিত জায়গায়। সে অনেক খুঁজেও বাড়ি ফেরার পথ না পেয়ে একটা গাছ তলায় বসে কাঁদতে শুরু করে। এদিকে টুনুর বাবা-মা তাদের আদরের ছোট্টমণিকে খুঁজে না পেয়ে প্রায় দিশেহারা।
টুনু যখন সব হারিয়ে কাঁদছে ঠিক তখনই তার এক হস্তীনীর সাথে তার দেখা হয়। হস্তীনীটিও তার আদরের একমাত্র সন্তানকে হারিয়ে মনমরা হয়েছিল। প্রথম প্রথম টুনু হস্তীনীটিকে দেখে ভয় পেলেও সময়ের ব্যবধানে তাদের মধ্যে বন্ধুত্ব হয়ে যায়। টুনু তাকে আদর করে নাম দেয় ‘রুনু’। টুনু-রুনুকে পেলে কি হবে, তার মন তো পড়ে আছে মায়ের কাছে। মায়ের কাছে যাবার জন্য তার মনটা ছটফট করছে। রুনু কি পারবে ছোট্ট টুনুকে তার বাবা-মার কাছে ফিরিয়ে দিতে? নাকি টুনু বেড়ে উঠবে বন্য পরিবেশে, বন্য প্রাণীদের মাঝে?
Read online or Download this book

© ভারতীয় কপিরাইট আইন, ১৯৫৭ অনুসারে সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত

এই বইটির স্বত্বাধিকার লেখক বা লেখক নির্ধারিত ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের, অর্থাৎ বইটি পাবলিক ডোমেইনের আওতাভূক্ত নয়৷ কেননা, যে সকল বইয়ের উৎস দেশ ভারত এবং ভারতীয় কপিরাইট আইন, ১৯৫৭ অনুসারে, লেখকের মৃত্যুর ষাট বছর পর স্বনামে ও জীবদ্দশায় প্রকাশিত অথবা বেনামে বা ছদ্মনামে ও মরণোত্তর প্রকাশিত রচনা বা গ্রন্থসমূহ প্রথম প্রকাশের ষাট বছর পর পঞ্জিকাবর্ষের সূচনা থেকে কপিরাইট মেয়াদ উত্তীর্ণ হয়ে যায়৷ অর্থাৎ, ১ জানুয়ারি, 2019 সাল হতে 1959 সালের পূর্বে প্রকাশিত (বা পূর্বে মৃত লেখকের) সকল রচনা পাবলিক ডোমেইনের আওতাভুক্ত হবে। এবং 1959 সালের পরে প্রকাশিত বা মৃত লেখকের বইসমূহ পাবলিক ডোমেইনের আওতাভূক্ত হবে না৷

আইনি সতর্কতা

প্রকাশক এবং স্বত্বাধিকারীর লিখিত অনুমতি ছাড়া এই বইয়ের কোনও অংশেরই কোনওরূপ পুনরুৎপাদন বা প্রতিলিপি করা যাবে না, কোন যান্ত্রিক উপায়ের (গ্রাফিক, ইলেকট্রনিক বা অন্য কোনও মাধ্যম, যেমন ফটোকপি, টেপ বা পুনরুদ্ধারের সুযোগ সম্বলিত তথ্য-সঞ্চয় করে রাখার কোনও পদ্ধতি) মাধ্যমে প্রতিলিপি করা যাবে না বা কোন ডিস্ক, টেপ, পারফোরেটেড মিডিয়া বা কোনও তথ্য সংরক্ষণের যান্ত্রিক পদ্ধতিতে পুনরুৎপাদন করা যাবে না। এই শর্ত লঙ্ঘিত হলে উপযুক্ত আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করা যাবে।

Leave a Reply

WhatsApp chat